Home স্বাস্থ্যকথা দ্রুত ওজন কমানোর সহজ উপায়!

দ্রুত ওজন কমানোর সহজ উপায়!

SHARE

এ ধারণা অনেক আগে থেকেই পোক্ত হয়েছে আমাদের মনে। কার্বোহাইড্রেট ত্যাগের মাধ্যমে দেহ বেশ সহজে অনেকটা ওজন হারাতে পারে। আর আমাদের ভাত ও রুটিতে এই খাদ্য উপাদানটি ভরপুর রয়েছে। গম বা চালের আটা-ময়দা হলো রুটির মূল উৎস। আর ভাত তো আছেই। তাই বলে কার্বো হটাতে ভাত বা রুটি বাদ দিলে চলবে না। এগুলো খেতেই হবে। তবে ওজন কমাতে চাইলে কোনটা বেশি উপকারী সে বিষয়টিই জানতে হবে।

রুটিই জিতবে
বিশেষজ্ঞদের মতে, ওজন কমানো যখন বিবেচনায় আনা হবে, তখন পরিষ্কারভাবে রুটির পক্ষে ভোট দিতে হবে। ভাত আর রুটির মধ্যে খুব বেশি পার্থক্য করা যাবে না। পার্থক্যসূচক বিষয়গুলোর মধ্যে অন্যতম সোডিয়ামের মাত্রার তারতম্য। ভাতে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে সোডিয়াম মেলে না। তবে রুটিতে বেশ খাবার লবণ থাকে। মাত্র ১২০ গ্রাম গমের রুটিতে ১৯০ মিলিগ্রাম সোডিয়াম থাকে।

আসল পার্থক্য
যারা লবণ এড়িয়ে চলতে চায়, তাদের জন্য ভাতই উত্তম। স্বাস্থ্য রক্ষায় অনেকের জন্য লবণ কম খাওয়ার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু ওজন কমাতে ভাত পিছিয়ে রয়েছে। এই দুই খাবারের কিছু মৌলিক পার্থক্য রয়েছে। ভাতে রয়েছে অপেক্ষাকৃত কম পরিমাণে ভক্ষণযোগ্য ফাইবার, প্রোটিন আর ফ্যাট। ফাইবার কম থাকায় এর হজমক্ষমতা রুটির চেয়ে কম। ভাতে আবার ক্যালোরি থাকে উচ্চমাত্রায়। এক প্লেট ভাতে যে পরিমাণ ক্যালোরি থাকে, তার চেয়ে অনেক কম ক্যালোরি মেলে দুটি রুটিতে।

দিনে চারটি রুটি
তবে সাবধান থাকতে হবে। রুটিতে ক্যালোরি কম দেখে যে ইচ্ছামতো খেতে পারবেন, তা নয়। ভোজনরসিক মানুষরা অনেকগুলো রুটি খেতে পারে। কিন্তু ওজন কমাতে দিনে চারটি রুটিতেই তুষ্ট থাকার পরামর্শ দিয়েছেন পুষ্টিবিদরা।

৮টায় রাতের খাবার
যদি রাতের খাবারেও রুটি রাখতে চান, তবে রাত ৮টার মধ্যেই খাওয়া ভালো। এ অভ্যাস করতে শুরুতে সমস্যা হতে পারে। তবে কয়েক দিন চেষ্টা করলেই সব স্বাভাবিক হয়ে যাবে। সব শেষে বলা যায়, ওজন কমানোর দৌড়ে এগিয়ে থাকতে তাই রুটিই বেছে নিতে বলেন পুষ্টিবিজ্ঞানীরা।