Home আন্তর্জাতিক দাড়ি-চুল কাটানো ইসলামবিরোধী, হুঁশিয়ারি পাকিস্তানি নাপিতদের

দাড়ি-চুল কাটানো ইসলামবিরোধী, হুঁশিয়ারি পাকিস্তানি নাপিতদের

SHARE

দেশটার নাম পাকিস্তান। অতএব গণতন্ত্র, মানুষের ইচ্ছে, মতপ্রকাশের অধিকার টুঁটি চেপে রাখাই যেন এখানে দস্তুর। কেউ চুল কাটাবে কি না তাও ঠিক করে দেবে  কট্টরপন্থীরা। নাপিতদের রীতিমতো হুমকি দিয়ে তারা জানিয়েছে চুল কাটানো ইসলামবিরোধী। কেউ দোকান খুললে ভেঙে দেওয়া হবে।

সেনাবাহিনী অভিযান তীব্র করার পর বেশ চাপে কট্টরপন্থী জঙ্গিরা। সাধারণ মানুষকে আতঙ্কে রাখতে তাদের এই চাল বলে মনে করা হচ্ছে। পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশে নাপিতদের কাছে এমন নির্দেশ পাঠিয়েছে একটি কট্টরপন্থী ইসলামী গোষ্ঠী। সেখানে স্পষ্ট বলা হয়েছে নাপিতরা আর কারও দাড়ি কামাতে পারবে নাা। খাইবার পাখতুনখোয়া পাকিস্তানের সবচেয়ে রক্ষণশীল এলাকাগুলির মধ্যে অন্যতম। কট্টরপন্থী একটি ইসলামী গোষ্ঠী সেখানে নাপিতদের কাছে রীতিমতো  প্রচারপত্র পাঠিয়েছে। যেখানে স্পষ্ট বলা হয়েছে দাড়ি কামানো ইসলাম বিরোধী।শুধু দাড়ি কামানো নয়, দাড়ি ছাঁটার বিরুদ্ধেও হুঁশিয়ারি দিয়েছে তারা। পাকিস্তানের নতুন প্রজন্মের মধ্যে নিত্যনতুন স্টাইলে দাড়ি কামানো বেশ জনপ্রিয়। মূলত বিদেশি ছাঁটে চুল বা দাঁড়ি ছাঁটতে পছন্দ করে নতুন প্রজন্ম। এধরনের বিদেশে স্টাইল ইসলামের অবমাননা বলে জানিয়ে দিয়েছে ওই জঙ্গিগোষ্ঠী। এটা যে ফাঁকা আওয়াজ নয় তা বূুঝিয়ে দিয়েছে ওই গোষ্ঠী। খাইবার পাখতুনখোয়া এলাকায় যেসব সেলুন মালিক কথা শোনেননি তাদের দোকান রীতিমতো ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। বাকিদের উদ্দেশ্যে বোঝানো হয়েছে ফের দোকান খুললে ফল ভাল হবে না। খাইবার পাখতুনখোয়াতে আগেও নাপিতরা এরকম হুমকির শিকার হয়েছেন দাড়ি কামানো নিয়ে।

পাক সেনাবাহিনীর লাগাতার অভিযানে খাইবার পাখতুনখোয়ায় রীতিমতো কোনঠাসা জঙ্গিরা। এই অবস্থায় তাদের এই ফরমানে ক্ষুব্ধ যুব সমাজ। পাশাপাশি তাদের পেশা বন্ধ করার এমন  নির্দেশ কোনওভাবে মানতে পারছেন না স্থানীয় নাপিতরা। তাদের বক্তব্য, জঙ্গিরা এমন হুঁশিয়ারি দিলেও প্রশাসনে সেভাবে তাদের পাশে দাঁড়ায়নি।