Home জ্যোতিষ জন্মতারিখ নয়, জন্মবারই বলবে আপনার ভবিষ্যত্‍

জন্মতারিখ নয়, জন্মবারই বলবে আপনার ভবিষ্যত্‍

SHARE
আমরা সবাই নিজেদের মতো করে জন্মদিন পালন করি। জন্মদিন পালনে কারওর পছন্দ হই-হুল্লোড় করা, কেউ একান্তে নিজের সঙ্গে সময় কাটান, আবার এই দিনটায় কেউ সমাজসেবা করতে ভালোবাসেন। নিজেদের জন্মদিনের তারিখটা আমরা কেউ ভুলি না। কিন্তু জানেন কি, কোন বারে আপনার জন্ম হয়েছিল? শুধু জন্মতারিখ নয়, একজন মানুষের ভবিষ্যত্‍ ও তার চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য নির্ণয় করতে জন্মবারের গুরুত্বও অপরিসীম।

জ্যোতিষশাস্ত্র অনুযায়ী, সপ্তাহের প্রত্যেক দিনেরই একটা গুরুত্ব আছে। সেই কারণেই সপ্তাহের প্রত্যেক দিনের সঙ্গে কোনও না কোনও গ্রহের নাম যুক্ত। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, রবিবার সূর্যের দিন, সোমবার চন্দ্রের দিন। সেরকমই মঙ্গল, বুধ, বৃহস্পতি, শুক্র ও শনি – নামের সঙ্গে মিলিয়েই প্রত্যেক দিনের অধিপতি এক একটি গ্রহ। সপ্তাহের প্রতিটি দিনের নিজস্ব তাত্‍পর্য রয়েছে। তাই সপ্তাহের কোন দিন আপনার জন্ম হয়েছে, তার সঙ্গে আপনার চরিত্র অনেকটাই সংযুক্ত।

সোমবার: সোমবারে যাঁদের জন্ম হয়, তাঁরা নিজেরাই নিজেদের উত্‍সাহ দিতে পারেন। ব্যবহারের মাধুর্য এবং দয়ামায়ার জন্য এরা সুপরিচিত। জীবনে ভালো ও খারাপ সময় – উভয়কেই নিজের মতো করে নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন এঁরা। প্রথম জীবনে পুঁথিগত পড়াশোনা পছন্দ না করলেও পরবর্তী জীবনে জ্ঞানের জন্য প্রসিদ্ধ হন।

মঙ্গলবার: এঁরা চট করে মাথা গরম করে ফেলেন। সহজেই রেগে যাওয়ায় অনেকেই সঙ্গেই এদের সম্পর্ক খুব একটা ভালো থাকে না। ইগোও এঁদের মধ্যে যথেষ্ট।

বুধবার: ধার্মিকতা দিকে এঁরা একটু বেশিই ঝুঁকে থাকেন। ঈশ্বরের প্রতি ভীতির কারণেই জীবনে খারাপ কাজ থেকে বিরত থাকেন এঁরা। এঁদের কথাবার্তা শান্ত ও ভদ্র। বাবা-মাকে এঁরা অত্যন্ত সম্মান করেন।

বৃহস্পতিবার: বৃহস্পতিবার যাঁদের জন্ম, তাঁদের বুদ্ধি অত্যন্ত প্রখর। অ্যাডভেঞ্চার এঁদের নেশা। কঠিন সময়ের মোকাবিলা কী ভাবে করতে হয়, তা এঁরা ভালোই জানেন। আত্মীয়-বন্ধুদের মধ্যে এঁরা খুবই জনপ্রিয়। ভাগ্যও এঁদের সহায় হয়।

শুক্রবার: এঁরা সবসময় হাসিখুশি থাকেন। প্রাণবন্ততার জন্য এঁরা সহজেই পরিচিতি পান। আশেপাশের মানুষকে এঁরা সহজেই প্রভাবিত করতে পারেন। এঁদের সহ্যশক্তি প্রচণ্ড। কঠিন সময়কেই হাসিমুখে কাটানো এঁদের সহজাত ক্ষমতা।

শনিবার: কৃষিবিদ্যা, প্রযুত্তি বা ব্যবসাবাণিজ্যের দিকে এঁদের ঝোঁক থাকে। অল্প বয়সে কিছু সমস্যার মুখোমুখি হতে হয় এঁদের। তবে বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে কী ভাবে আশেপাশের মানুষদের থেকে সাবধান হতে হয়, তা শিখে যান এঁরা। বাবা-মার সঙ্গে এঁদের সম্পর্ক খুব একটা ভালো হয় না।

রবিবার: জীবনের প্রতি এঁদের একটু গা ছাড়া মনোভাব থাকে। তবে ভাগ্য সব সময় এঁদের সঙ্গে থাকে। সামাজিক মেলামেশায় এঁরা খুব একটা দড় হন না। সবার সঙ্গে কথাবার্তায় এঁরা একটু মুখচোরা হন। শিক্ষা ও শিল্পক্ষেত্রে এঁরা প্রচুর খ্যাতি ও সম্মান অর্জন করেন। ধর্মের প্রতিও এঁদের আগ্রহ রয়েছে। পরিবারের সদস্যদের খুশি রাখতেও এঁরা ভালোবাসেন।