Home আজকের চট্টগ্রাম স্পেশাল সাড়ে তিন লাখ লোকের মেজবান রান্না করেন ১ হাতে, কে এই বিখ্যাত...

সাড়ে তিন লাখ লোকের মেজবান রান্না করেন ১ হাতে, কে এই বিখ্যাত আবুল বাবুর্চি?

SHARE

চট্টগ্রামের ঐতিহ্য মেজবান রান্না। দেশের আনাচে কানাচে যতই মেজবান মাংসের কথা শোনা যাক না কেন মেজবানের আসল স্বাদ পাওয়া যায় কেবল চট্টগ্রামের মেজবানেই। তবে এই রান্নার মশলা আর কৌশল না জানলে মেজবানের আসল স্বাদ থেকে বঞ্চিত হতে হবে। তবে সবার হাতে মেজবান রান্নার সমান যশ নেই। আজকে জানাবো দেশের শীর্ষ স্থানীয় বাবুর্চির নাম যিনি এক দিনে সারে তিন লাখ মানুষের জন্য মেজবান রান্না করেছেন। তাঁর নাম হাজী মোহাম্মাদ আবুল হোসাইন।

চট্টগ্রামে জন্মগ্রহণ করে সেখানেই কাটিয়েছেন শৈশব এবং যৌবন। ছোটবেলায় ডান পিঠে ছিলেন বলে লেখা পড়া করতেন না। তাই বাবুর্চি বাবার হাত ধরেই শুরু করেন রান্না শেখার কাজ। ১৯৮০ সালে শুরু করে বর্তমানে দেশের শীর্ষ স্থানীয় বাবুর্চির মধ্যে একজন আবুল বাবুর্চি।

সবচেয়ে বড় কোন অনুষ্ঠানে রান্না করেছেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘রাউজানে সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর ছেলের বিয়ের অনুষ্ঠানে সারে তিন লাখ লোকের জন্য ১১০ টা গরুর মেজবান রান্না করেছি। এছাড়াও ফটিক ছড়ির প্রাত্তন সাংসদ রফিকুল আনোয়ারের মেজবান ছিল ২য় সেরা মেজবান। এই মেজবানে ৬০ টি গরুর মাংস রান্না হয়। এছাড়া দেশের যেকোনো স্থানে বড় বড় মেজবান হলেই আবুল বাবুর্চির ডাক পরে।

মেজবান, কাচ্চি, মোরগ পোলাও, বিরিয়ানি সহ যেকোনো বাংলা খাবার রান্না করতে পারেন তিনি। তবে নিজে যতই বিরিয়ানি রান্না করেন না কেন নিজে পছন্দ করেন তাঁর স্ত্রীর হাতের ডাল ভাত। বিরিয়ানির চেয়ে তাঁর কাছে সাধারণ খাবারই বেশি পছন্দ।

রান্নার এই পেশা থেকেই নিজের দুই ছেলে এবং দুই মেয়েকে পড়া লেখা শিখিয়ে মানুষ করিয়েছেন। বড় ছেলে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ করে এখন ব্যবসা করছেন। বাবুর্চি পেশায় অনেক চাপ থাকার কারনে নিজের ছেলেদের কাউকে এই পেশায় নিয়ে আসেন নি। তবে আগ্রহ আছে বলে ভায়ের দুই ছেলে কে তাঁর সাথে রান্নার কাজ শেখাচ্ছেন। পরবর্তীতে তাঁর ভাইয়ের ছেলেরায় ভবিষ্যতে মেজবান রান্না করবেন।

যদি সুযোগ আসে তাহলে তিনি ট্রেনিং সেন্টার খুলে মেজবান রান্না শেখাবেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এমন সুযোগ পেলে অবশ্যই শেখাবেন।

রান্নার কাজে বিদেশ গিয়েছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, রান্নার কাজে মালয়েশিয়া যাওয়ার সুযোগ এসেছিল কিন্তু দেশে কাজের চাপে বিদেশ আর যাওয়া হয়নি। তবে দেশের বিভিন্ন জেলাতে রান্নার জন্য গিয়েছেন। শুধু তাই নয় দেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া আমার রান্না খেয়ে প্রশংসা করেছেন।