Home খেলাধুলা ‘ঈশ্বরের হাত’ এ বার বাঁচাল, বলছে ইংল্যান্ড

‘ঈশ্বরের হাত’ এ বার বাঁচাল, বলছে ইংল্যান্ড

SHARE

তারকা, গ্ল্যামার, আবেগ, উৎকণ্ঠা, ফুটবলবিশ্ব মুঠোয় আনার স্বপ্ন— এই কোলাজেই শুক্রবার মস্কোর রাত জমজমাট হয়ে থাকল রাশিয়া বিশ্বকাপের ড্র অনুষ্ঠানকে ঘিরে।

যে ড্রয়ের সৌজন্যে ইংরেজ ফুটবল সমর্থকদের কাছে দিয়েগো আর্মান্দো মারাদোনা দীর্ঘ ৩১ বছর পরে চোখের বালি থেকে  হয়ে গেলেন চোখের মণি। যে দিয়েগো মারাদোনার ‘ঈশ্বরের হাত’ ১৯৮৬ সালে মেক্সিকো বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে দিয়েছিল ইংল্যান্ডকে। এ দিন ক্রেমলিন প্যালেসে দ্বিতীয় পাত্র থেকে সেই মারাদানোর হাতই সযত্নে ইংল্যান্ডকে তুলে রাখল গ্রুপ ‘জি’-তে। লটারি হয়ে যাওয়ার পর ইংল্যান্ডের ফুটবল মহলে স্বস্তি অপেক্ষাকৃত সহজ গ্রুপে পড়ার জন্য। শেষ ষোলোয় যাওয়ার লড়াই হাড্ডাহাড্ডি নয়।

ড্রয়ের সময় ব্রাজিল কিংবা জার্মানির গ্রুপে পড়ার সম্ভাবনা ছিল ইংল্যান্ডের। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা না হওয়ায়, মঞ্চে হাজির ছিয়াশির সেই ইংল্যান্ড-আর্জেন্তিনা ঐতিহাসিক ম্যাচে ইংল্যান্ডের গোলদাতা গ্যারি লিনেকার রসিকতা শুরু করে দেন। বৃহস্পতিবারই ৫৮ বছরে পা দেন লিনেকার। তাই মঞ্চে রাশিয়ান ব্যালে শুরু হওয়ার আগে তার জন্য একটি বড়সড় কেক কাটার অনুষ্ঠানও ছিল। সেই লিনেকার বলেছেন, ‘‘দিয়েগোর হাত যে এখনও দুর্দান্ত ম্যাজিক দেখাতে পারে তা দেখতে পেলাম।’’

কী ভাবে হয় ড্র

• ৩২টি দলকে চারটি পটে ভাগ করা হয়। আয়োজক দেশ রাশিয়া এবং ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে সবচেয়ে উপরে থাকা সাতটি দল থাকবে প্রথম পটে।

• র‌্যাঙ্কিংয়ে সবচেয়ে নীচে থাকা দলগুলি থাকে চার নম্বর পটে।

• প্রত্যেক পট থেকে একটি করে দল যাবে একটি গ্রুপে।

• ইউরোপ থেকেই শুধু দু’টি দল থাকতে পারে কোনও গ্রুপে। অন্য মহাদেশ থেকে একটি করে দল।

মনে রাখুন

• সেপ ব্লাটারকে ছাড়া এই প্রজন্মের প্রথম বিশ্বকাপ ড্র। ১৯৯৮ থেকে ফিফার প্রেসিডেন্ট ছিলেন ব্লাটার। দুর্নীতির দায়ে তাঁকে সরে যেতে হয়। ২০১৬-তে আসেন ইনফান্তিনো।

• মস্কোতে ১৪ জুন, ২০১৮ শুরু হচ্ছে বিশ্বকাপ। ১৫ জুলাই ফাইনাল। গত বার ব্রাজিলে চ্যাম্পিয়ন হয় জার্মানি। পর-পর দু’বার বিশ্বকাপ জেতা একমাত্র দল ব্রাজিল (১৯৫৮ ও ১৯৬২)।

বিশ্বকাপের ড্র উপলক্ষে এ দিন তুষারস্নাত মস্কোতে যেন চাঁদের হাঁট বসেছিল। বান্ধবী রোসিও অলিভা-র হাত ধরে ক্রেমলিন প্যালেসে ঢোকেন মারাদোনা। কালো স্যুটের সঙ্গে হলুদ রঙের বো। মারাদোনার বান্ধবীর পরনে ছিল ফারের জ্যাকেট। মডেল স্ত্রী পাজ কার্ডোজোকে নিয়ে মারাদোনার প্রায় সঙ্গেই ঢোকেন ২০১০ বিশ্বকাপের নায়ক উরুগুয়ের দিয়েগো ফোরলান। ছিলেন কাফু, গর্ডন ব্যাঙ্কস, মিরোস্লাভ ক্লোজে-রাও। হুইলচেয়ারে করে হাজির ছিলেন ফুটবল সম্রাট পেলেও। অসুস্থ থাকার জন্যই হয়তো তাঁকে মঞ্চে তোলা হয়নি। ছিলেন অংশগ্রহণকারী প্রতিটি দেশের কোচ, অধিনায়ক এবং ফেডারেশনের কর্তারা। ফুটবল সম্রাট পেলেকে দেখে তাঁর কপালে চুম্বন করেন মারাদোনা। যে আবেগপূর্ণ বিরল দৃশ্য দেখে দুই কিংবদন্তির সঙ্গে ছবি তুলতে দাঁড়িয়ে পড়েন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনও।

গ্রুপ ‘জি’ তে ইংল্যান্ডের সঙ্গে রয়েছে বেলজিয়াম, পানামা এবং তিউনিশিয়া। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হতে গেলে গ্যারেথ সাউথগেটের দলের লড়াই মূলত রোমেলু লুকাকু-দের বেলজিয়ামের বিরুদ্ধেই।  গ্রুপ ‘বি’ তে এ বার স্পেন, পর্তুগাল-এর সঙ্গে রয়েছে ইরান এবং মরক্কো। আর গতবারের চ্যাম্পিয়ন জার্মানি ‘এফ’ গ্রুপে থাকছে মেক্সিকো, সুইডেন এবং দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে।

আকর্ষণ: এক ফ্রেমে দুই কিংবদন্তি— পেলে ও মারাদোনা। পাশে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। শুক্রবার মস্কোয় বিশ্বকাপের ড্র অনুষ্ঠানে। ছবি: এপি।

তবে রাশিয়া বিশ্বকাপের ‘গ্রুপ অব ডেথ’ গ্রুপ ‘ডি’। মেসি-আগুয়েরো-দের গ্রুপেই রয়েছে আইসল্যান্ড। যারা গত ইউরো কাপে দুর্দান্ত খেলেছিল। বিশ্বকাপে মেসিদের প্রথম ম্যাচ এই আইসল্যান্ডের বিরুদ্ধেই। এ ছাড়াও দু’ বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের গ্রুপে রয়েছে নাইজিরিয়া ও ক্রোয়েশিয়া। বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে ১৪ জুন মস্কোতে আয়োজক দেশ রাশিয়ার মুখোমুখি হবে সৌদি আরব। অপেক্ষাকৃত সহজ এই গ্রুপে রয়েছে মিশর এবং উরুগুয়ে।

পাঁচ বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল অবশ্য গ্রুপ ‘ই’ তে সুইৎজারল্যান্ড, কোস্তা রিকা এবং সার্বিয়ার বিরুদ্ধে খেলবে। যা অপেক্ষাকৃত সহজ গ্রুপ। যে গ্রুপ দেখেই ব্রাজিলের একটি প্রচারমাধ্যম টুইট করেছে, ‘ব্রাজিলের কোনও সমর্থককে রাস্তায় দেখলে আজ থেকেই বলতে শুরু করে দিন ‘ফোদাসে’।’ যে শব্দের অর্থ— ষষ্ঠ বিশ্বকাপ আসছে।

এমনকী নেমারও ব্রাজিলের সংবাদমাধ্যমে বলেছেন, ‘‘মনে হচ্ছে এই বিশ্বকাপটা ব্রাজিলীয়দের কাছে একটা দুর্দান্ত বিশ্বকাপ হতে চলেছে। বিশ্বকাপটা নিজের হাতে তুলতে চাই। তার জন্য নিজেকে নিংড়ে দেব।’’

সূত্রঃ আ্নন্দবাজার